আপনি কি অহেতুক ভয় পান? সহজেই ভয় দূর করার উপায় জেনে নিন।

আপনি কি অহেতুক ভয় পান? সহজেই ভয় দূর করার উপায় জেনে নিন।

ভয় দূর করার উপায় খুঁজতে গিয়ে আমরা কত কি-ই না করি। মানুষ হিসেবে আমাদের কোন না কোন ক্ষেত্রে কমতি থাকবে এটাই স্বাভাবিক। সুখ, দুঃখ, হাসি, কান্নার মতো ভয়ও আমাদের অতি প্রাকৃতিক একটি বিষয়। তবে কখনও কখনও আমরা অহেতুক ভয় পাই। আমার ইউটিউব চ্যানেল ও ফেসবুক পেজে সহজে ভয় দূর করার উপায় সম্পর্কে আলোচনা করেছিলাম। দুঃখজনক হলেও সত্য বেশিরভাগ মানুষই শুধু ঔষধ খোঁজে, যেকোন সমস্যায় তারা ঔষধের বাইরে কিছু চিন্তাও করতে পারে না। কিন্তু অহেতুক ভয় দূর করার সহজ উপায়ে কোন ঔষধই সত্যিকার অর্থে কাজ করে না।

Ankle Incline Slant Board (Plastic) | সায়েটিকা ও হিপ পেইন রিমুভার

ভয় দূর করার উপায়

ভয় দূর করার উপায়

আমি ন্যাচারোপ্যাথি ও আকুপ্রেসার বিশেষজ্ঞ, তাই সহজ উপায়ে ভয় দূর করতে ন্যাচারোপ্যাথি ও আকুপ্রেসার পয়েন্ট নিয়েই আলোচনা করে থাকি। তবে আশার সংবাদ হচ্ছে, বর্তমানে অনেকেই বিভিন্ন সমস্যার আকুপ্রেসার পয়েন্টে আকুুপ্রেসার করে সমাধান পেয়েছে এবং তারা আমাকে কখনও কল করে, কখনওবা এসএমএস করে ধন্যবাদ জানাচ্ছে। আবার কেউ কেউ তো সরাসরি কমেন্ট করেই ধন্যবাদ জানাচ্ছে। সময়ের স্বল্পতায় সবার মন্তব্য আসলে পাঠকদের সামনে তুলে ধরা সম্ভব হয়ে ওঠে না।

আপনাদের যাদের অহেতুক ভয় পাওয়া জনিত সমস্যা রয়েছে, তারা আকুপ্রেসার ট্রাই করে দেখতে পারেন। আপনি যদি সঠিক উপায়ে আকুপ্রেসার করতে পারেন, আপনার অহেতুক ভয় পাওয়ার সমস্যা শতভাগ সমাধান হয়ে যাবে। আপনার অহেতুক ভয় পাওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তা করার কোন কারণ নাই, নিয়মিত আকুপ্রেসার করুন এবং ভিডিওতে দেয়া আমার পরামর্শগুলো মেনে চলুন। আপনার ভয় সহজ উপায়েই দূর হয়ে যাবে।

সহজ উপায়ে ভয় দূর করার উপায় জেনে নিন (ভিডিও): https://youtu.be/JbImB43fjPI

সব ভিগানই নিরামিষাশী, কিন্তু সব নিরামিষাশী ভিগান নন

সব ভিগানই নিরামিষাশী, কিন্তু সব নিরামিষাশী ভিগান নন

আমিষ আর নিরামিষ নিয়ে দ্বন্দ্ব যেন থামার নয়। যাঁরা কেবল শাকসবজি খেয়ে জীবন যাপন করেন, তাঁদের বলা হয় ভেজিটেরিয়ান। কিন্তু ‘ভিগান’ শব্দটির সঙ্গে অনেকেরই পরিচয় নেই। আমিষ, নিরামিষের দ্বন্দ্বে ভিগান যুক্ত হয়েছে তৃতীয়পক্ষ হিসেবে।
বিশ্বব্যাপী এখন ভিগান বা ভিগানিজম নতুন প্রজন্মের এক নতুন ট্রেন্ড। ১৯৪৪ সালে ডোনাল্ড ওয়াটসনের উদ্যোগে গড়ে ওঠে ভিগান সোসাইটি। ২০১০ সালে জাতিসংঘ ভিগান ডায়েট নিয়ে একটি রিপোর্ট প্রকাশ করে সাড়া ফেলে দেয়। তখন থেকেই ভিগান ডায়েট নিয়ে বিশ্বজুড়ে শুরু হয় মাতামাতি। বিশ্বে ভিগানিজম দিন দিন নিজের জায়গা শক্ত করে নিচ্ছে। প্রায়ই ভিগান আর ভেজিটেরিয়ানদের নিয়ে তৈরি হচ্ছে কনফিউশান। দেখে নেওয়া যাক ভিগান ডায়েট ও ভেজিটেরিয়ানদের কথা।

ভিগান ডায়েট

ভিগানিজম এমন একটি জীবনধারা, যেখানে প্রাণী ও প্রাণিদেহের দ্বারা তৈরি সব খাবার ও ব্যবহার্য পণ্য বর্জন করা হয়। এককথায়, নিরামিষাশীরা যখন প্রাণিজাত সমস্ত খাবারের সঙ্গে দূরত্ব বজায় রেখে চলেন, তখন তাঁদের ভিগান বলে। মাছ-মাংস তো নয়ই, ভিগানরা ডিম, দুধ আর দুধের তৈরি কোনো খাবার, যেমন ছানা, দই, পনির, সন্দেশ, রসগোল্লা এসব কিছু চেখেও দেখেন না।

ভিগানরা কত প্রকার

দিন দিন ভিগানরাও বিভিন্ন ভাগে ভাগ হয়েছেন।
• হোল ফুড ভিগান। তাঁরা ফলমূল, শাকসবজি, শস্য, বাদাম ও বীজ–জাতীয় খাবার খেয়ে থাকেন।
• জাঙ্ক ফুড ভিগান। তাঁরা প্রক্রিয়াজাত ভিগান খাবার খান। যেমন: ভিগান মাংস, ফ্রোজেন ডিনার, নন–ডেয়ারি আইসক্রিমের মতো ডেজার্ট ইত্যাদি।
• র ফুড ভিগান। এই ব্যক্তিরা কেবল কাঁচা খাবার অথবা ৪৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নিচের তাপমাত্রায় রান্না করা খাবার খান।
• লো ফ্যাট, র ফুড ভিগান। তাঁদের ডায়েটে বাদাম, অ্যাভোকাডো, নারকেলসহ উচ্চ ফ্যাটযুক্ত খাবার সীমিত রাখেন। এর বদলে ফলের ওপর নির্ভর করেন। তাই তাঁদের ‘ফ্রুটারিয়ানস’ও বলা হয়।

কীভাবে ভিগান ডায়েটে পুষ্টির ভারসাম্য বজায় থাকে

ভিগান ডায়েটের ধারণাটি একেবারেই নতুন। ভিগানদের শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন বি১২, ভিটামিন ডি, লং-চেইন ওমেগা৩ ফ্যাটি অ্যাসিড, আয়োডিন, আয়রন, ক্যালসিয়াম এবং জিঙ্ক না–ও থাকতে পারে। এটা এড়াতে তাঁরা দুধ, চা-কফি খাদ্যতালিকা থেকে বাদ দিয়ে দেন। তার বদলে শোষণক্ষমতা বাড়াতে খাদ্যতালিকায় বেশি করে ভিটামিন সি ও আয়রনসমৃদ্ধ খাবার খেয়ে থাকেন। আয়রনের শোষণে সবচেয়ে বেশি সাহায্য করে ভিটামিন সি। অঙ্কুরিত বীজ, উদ্ভিজ্জ দুধসহ সুষম খাদ্য গ্রহণ করে স্বাস্থ্য ভালো রাখেন তাঁরা।

ভিগানদের খাদ্যতালিকায় যা থাকে, যা থাকে না

প্রাণিজাত যেকোনো জিনিসই ভিগানদের খাদ্যতালিকায় থাকে না। মাংস, মাছ, শেলফিশ, ডিম, মধু, দুধ ও দুগ্ধজাত খাবার কিছুই খান না ভিগানরা। তাঁরা প্রাণিজ প্রোটিন বর্জন করে কেবল উদ্ভিজ্জ প্রোটিন খান। ভিগানদের খাদ্যতালিকায় বিভিন্ন ধরনের ডাল, টফু, বাদাম, বীজ প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য। এমনকি প্রাণিজ দুধের বদলে, উদ্ভিদজাত দুধ এবং মধুর বদলে ম্যাপল সিরাপ খান তাঁরা। ভিগানরা প্রধানত তাঁদের খাদ্যতালিকা প্রচুর পরিমাণে শাকসবজি, ফলমূল ও শস্যের ওপর ভিত্তি করে বানান।

ভিগান ও ভেজিটেরিয়ানের মধ্যে পার্থক্য

ভিগান ও ভেজিটেরিয়ানরা উভয়ই নিরামিষাশী হলেও, তাঁদের মধ্যে বেশ কিছু পার্থক্য আছে। ভেজিটেরিয়ানরা মাছ-মাংস না খেলেও তাঁদের খাদ্যতালিকায় দুধ ও দুগ্ধজাত দ্রব্য, মধু, ডিম এবং বিভিন্ন প্রাণিজ দ্রব্য থাকে। এমনকি প্রাণী জাতীয় পণ্য, যেমন চামড়ার তৈরি জুতা অথবা জামাকাপড় প্রভৃতি ব্যবহার করেন। অন্যদিকে ভিগানরা তাঁদের জীবন থেকে সম্পূর্ণভাবে প্রাণিজ দ্রব্য ও পণ্য বর্জন করেন। উল, চামড়া বা সিল্কের পোশাকও পরেন না তাঁরা।

ভিগানদের মতে, খাদ্য ও পণ্যের জন্য প্রাণী হত্যা করা অন্যায়। পশুসমাজের ওপর নির্মম অত্যাচার। এসবের ঘোরতর বিরোধী ভিগানরা। এককথায় বলা যায়, সব ভিগান ভেজিটেরিয়ান হলেও, সব ভেজিটেরিয়ান ভিগান নন। ভিগানরা আরও স্বকীয়।
অনেকের প্রশ্ন থাকে, তাহলে ভিগানরা আমিষের ঘাটতি পূরণ করেন কী করে? পৃথিবীতে ভিগানদের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। তবে ভিগানরা প্রমাণ করছেন যে প্রাণিজ আমিষ ছাড়াও মানুষ ভালোভাবেই বাঁচতে পারে। সে সঙ্গে প্রাণী রক্ষা আন্দোলনটাও প্রাণ পায়। ভিগানরা মনে করেন, পৃথিবীতে সব প্রাণীর সমান অধিকার রয়েছে। বাংলাদেশেও ভিগান আন্দোলন চলছে। দিন দিন এর সদস্যসংখ্যাও বাড়ছে।

লেখক: আলমগীর আলম, খাদ্য পথ্য ও আকুপ্রেশার বিশেষজ্ঞ।

আড্ডার মধ্যমণি, স্বাস্থ্যেও সমান

আড্ডার মধ্যমণি, স্বাস্থ্যেও সমান

প্রথম জাতীয় চা দিবসের বিশেষ আয়োজন

পানির পরেই চা বিশ্বের সর্বাধিক উপভোগ্য পানীয়। যেকোনো আড্ডা ও আপ্যায়নে চা প্রধানতম পানীয়; যা দিয়ে মানুষ স্বচ্ছন্দে আপ্যায়িত হয় এবং আপ্যায়ন করতে মানুষ পছন্দ করে। এর একধরনের স্নিগ্ধ, প্রশান্তিদায়ক স্বাদ রয়েছে এবং মানুষ এটি উপভোগ করে। ক্লান্তি ও অবসাদে চা মানুষের মধ্যে প্রশান্তি এনে দেয়। চা শুধু আপ্যায়নের উপচার নয়, স্বাস্থ্যরক্ষায়ও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সামান্য খারাপ গুণ থাকলেও চায়ে পুষ্টিগুণ যা আছে, তাতে চা খাওয়াই যেতে পারে।

চা–গাছের বৈজ্ঞানিক নাম ক্যামেলিয়া সিনেনসিস। চায়ে পলিফেনলস, ফ্ল্যাভোনয়েডস এবং ক্যাটেচিন পলিফেনলস এবং ক্যাটেচিন থাকে, যা ফ্রি র‌্যাডিক্যালস তৈরিতে বাধা দেয় এবং কোষ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়াকে বাধাগ্রস্ত করে। এ কারণে চা ক্যানসার প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। চায়ে উপস্থিত পলিফেনলসের পরিমাণ ২৫ শতাংশের বেশি, যা দেহের অভ্যন্তরে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। চায়ে ৭ শতাংশ থিওফাইলিন ও থিওব্রোমিন রয়েছে, যা শ্বাসকষ্ট ও হাঁপানির জন্য বিশেষ উপকারী।

আমাদের এ অঞ্চলে চায়ের একটি ইতিহাস আছে, চা খাওয়ার প্রচলন চীন করলেও একে বহির্বিশ্বে পরিচয় করিয়েছে ইউরোপ, বিশেষ করে ব্রিটিশ ও ওলন্দাজরা। এই অঞ্চলে উপনিবেশ করার সঙ্গে চায়ের আমদানি হয়। বিশেষত ব্রিটিশরা স্থায়ী শাসন প্রতিষ্ঠার করার পর এখানে চাষ করা শুরু করে, বিশেষ করে বৃষ্টিপ্রধান এলাকা দার্জিলিং ও সিলেট অঞ্চলে চায়ের বাগান করে। এখানে প্রচুর পরিমাণে জন্মানো চা–গাছ ছিল ক্যামেলিয়া সিনেনসিস অসমিকা নামে একটি উপপ্রজাতির। গ্রিন টির চেয়ে আসাম টি বেশি স্বাদযুক্ত কালো রঙের ছিল।

সাধারণভাবে প্রাথমিক ইংলিশ ব্রেকফাস্টের অন্তর্ভুক্ত আসা রং কড়া থাকায় তা লোকজন দুধসহকারে পান করত। বর্তমানে ব্রিটেনে সাধারণ ইংলিশ ব্রেকফাস্ট বা প্রাতরাশের সঙ্গে দেওয়া চা দুধসহকারে পান করা হয় কিন্তু ইউরোপ মহাদেশের অন্যান্য স্থানে চায়ের সঙ্গে দুধ খুব কমই পরিবেশন করা হয়। এর কারণ মূলত ইন্দোনেশিয়ার জাভা থেকে নেদারল্যান্ডসে যে চা যেত, তা ছিল অনেক হালকা এবং তার সঙ্গে দুধ যোগ করার প্রয়োজন হতো না। এর ফলে ফ্রান্স, স্পেন ও জার্মানিতে এই চা–কে জনপ্রিয় করে তুলেছিল।

যেহেতু চা আমাদের প্রতিদিনের ব্যস্ত জীবনের নিত্যসঙ্গী, সেহেতু এই চা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য কতটুকু উপকারী এবং কতটুকু অপকারী, তা জেনে রাখা শ্রেয়।

আমাদের হরেক রকম চা ও তার উপকারিতা

আদা চা: আদা চা খুবই উপকারী; বিশেষ করে সর্দি-কাশির ক্ষেত্রে এটি ওষুধের বিকল্প হিসেবে কাজ করে। গরম আদা–চা পান করলে গলাব্যথা কমে যায়। অ্যাসিডিটির বিরুদ্ধেও আদা–চা কাজ করে। এমনকি আদা–চা পান করলে হজমের সমস্যা কমে।

দুধ–চা: ক্লান্তি দূরীকরণে খুবই কার্যকর। নিয়মিত চা পানে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে। চা হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর ঝুঁকি প্রায় ৫ গুণ কমিয়ে দেয়।

লাল–চা: এর মধ্যে থাকা ট্যানিন ফ্লু, ঠান্ডা, ইনফ্লুয়েঞ্জা আক্রমণ ও অন্ত্রের প্রদাহ প্রতিরোধ করে দেহকে সুরক্ষা দেয়। লাল–চা রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়ায়। হজম ভালো করে। এর মধ্যে থাকা ট্যানিন হজম প্রক্রিয়ায় সাহায্য করে। এটি অন্ত্রের ও গ্যাস্ট্রিকের সমস্যার বিরুদ্ধে লড়াই করে। লাল–চা অন্ত্রের প্রদাহ রোধেও কাজ করে।

গবেষণায় বলা হয়, লাল–চা কার্ডিওভাসকুলার সমস্যা সমাধানে সাহায্য করে। এর মধ্যে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ক্ষতিকর কোলেস্টেরলের জারিত হওয়া প্রতিরোধে কাজ করে। এ ছাড়া অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট মুখের ক্যানসার প্রতিরোধ করে। এর মধ্যে থাকা অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান দাঁতের ক্ষয় সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া প্রতিরোধ করে। তা ছাড়া এর মধ্যে থাকা ফ্লোরাইড মুখের দুর্গন্ধ দূর করে।

লাল চায়ের মধ্যে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রেক্টাল, জরায়ুর ক্যানসার, ফুসফুস ও ব্লাডার ক্যানসার প্রতিরোধ করে, এটি স্তন ক্যানসার, প্রোস্টেট ক্যানসার ও পাকস্থলীর ক্যানসার প্রতিরোধেও কাজ করে। আমেরিকার ন্যাশনাল টি ইনস্টিটিউটের ‘টি অ্যান্ড ক্যানসার’বিষয়ক একটি নিবন্ধ জানিয়েছে, চায়ের উপকারিতা ক্যানসারের মতো সমস্যায় উপকারী। নিয়মিত এক কাপ রং–চা খেলে স্তন ক্যানসার, কোলোন ক্যানসার ও অন্যান্য আরও কিছু ক্যানসারের ঝুঁকি অনেকাংশে কমে যায়।

চা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট–সমৃদ্ধ হলেও এতে রয়েছে ক্যাফেইন নামক উত্তেজক পদার্থ, সাধারণত চায়ে ক্যাফেইন রয়েছে, বস্তুত ক্যাফেইনের কারণেই ঘুম কম হওয়া, হজমে ব্যাঘাত ঘটা ইত্যাদি সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে।

চা সম্পর্কে ভুল ধারণা

চা সম্পর্কে আমাদের অনেকের ভুল ধারণা আছে। যেমন চা খেলে রাতে ঘুম আসে না, চা লিভারের ক্ষতি করে, চা চামড়া কালো করে ইত্যাদি। যদিও চা খেলে গায়ের রং কালো হবে না, কারণ ত্বকের রং নির্ভর করে ম্যালানোসাইট কোষের সক্রিয়তার ওপর। চা পান করলে লিভারের কোনো ক্ষতি হয় না, তবে এটা মনে রাখতে হবে যে অতিরিক্ত চা পান করলে বিপরীত প্রতিক্রিয়া হবে; যেমন অবসাদ ও কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা দিতে পারে। ইদানীং বিভিন্ন স্থানে হরেক রকম চায়ের দোকান গড়ে উঠেছে। সেখানে দুধের সর দিয়ে চা বানানো হয়, তা কিন্তু চা আর থাকে না, বরং সেটা দুধের পদ হয়ে যায়। ওটা মোটেও চা নয়।

চা বানানোর সবচেয়ে ভালো উপায় হলো, প্রথমে পানি বেশ কিছুক্ষণ ফুটতে দিতে হবে। এরপর চুলা থেকে নামিয়ে পানিতে প্রতি কাপের জন্য এক চা-চামচ করে পাতা দিয়ে কেটলি ঢেকে রাখতে হবে, যাতে চা ঠান্ডা হয়ে না যায়। চার থেকে পাঁচ মিনিট পর কাপে ঢেলে নিয়ে পান করতে হবে।

আড্ডা হোক আর আপ্যায়ন, কনডেন্সড মিল্ক দিয়ে চা খাওয়ার প্রচলন কোনো অবস্থায় ভালো কিছু নয়। তাই এটা পরিহার করা উচিত। আর চিনি খাওয়াও ক্ষতিকর। তাই যতটা পারা যায় চিনি পরিহার করেই চায়ের আসল স্বাদ গ্রহণ করা।

জাতীয় চা দিবসে চা হয়ে উঠুক আড্ডার মধ্যমণি!

লেখক: খাদ্য, পথ্য ও আকুপ্রেশার বিশেষজ্ঞ

গাঁজানো রসুন-মধু : উত্তম ভেষজ প্রতিকার

গাঁজানো রসুন-মধু : উত্তম ভেষজ প্রতিকার

রসুন ও মধুর মিশ্রণ হলো এক উত্তম ভেষজ প্রতিকার, যা সর্দি-কাশি নিরাময়ের পাশাপাশি ওজন হ্রাস করতে বহু বছর ধরে ব্যবহৃত হচ্ছে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য এই মিশ্রণের প্রাকৃতিক যৌগ রয়েছে, যা বৈজ্ঞানিকভাবে দেহে ইতিবাচক প্রভাব ফেলে বলে প্রমাণিত হয়েছে।

রসুন ও মধু

রসুনে অ্যালিসিন রয়েছে, একটি অর্গানসালফার যৌগ, যা প্রতিরোধের মাত্রা বাড়াতে সহায়তা করে। প্রাকৃতিক গবেষণায় বলা হয়, রসুন থেকে অর্গানসালফার যৌগিক সম্ভাব্যভাবে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি, অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল ও কার্ডিওপ্রোটেক্টিভ ক্রিয়াকলাপগুলো থাকে।

মধুতেও এমন জৈব যৌগ থাকে, যা অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল ও অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল বৈশিষ্ট্যযুক্ত। ফলে রসুন ও মধু—এ দুটি উপাদান একত্র হলে শরীরে প্রতিরোধব্যবস্থা বৃদ্ধি এবং সামগ্রিক স্বাস্থ্যের উন্নতি করে। এ জন্য এই মিশ্রণ একটি শক্তিশালী ঘরোয়া উপায় হিসেবে বিবেচিত। ভেষজ প্রতিকার হিসেবে রসুন ও মধু রাখার সর্বাধিক সাধারণ উপায় সম্পর্কে জানানো হলো।

গাঁজানো রসুন-মধুর রেসিপি

উপকরণ

রসুনের কোয়া ১২টি, মধু ২৫০ গ্রাম
(পরিমাণ বেশিও করতে পারেন কিন্তু এই অনুপাতে করতে হবে।)

প্রণালি

গাঁজানো রসুনের মধু তৈরি করতে একটি পরিষ্কার হিটারপ্রুফ গ্লাস জার নিন। সেই জারে খোসা ছাড়ানো রসুনের কোয়া দিন। এবার এর মধ্যে মধু ঢেলে দিন। মুধ এমনভাবে ঢালুন, যাতে রসুনের কোষগুলো যেন মধুতে ডুবে যায়। এরপর জারের মুখটি ভাল সুতি কাপড় দিয়ে বেঁধে তিন দিন রেখে দিন।

তিন দিন পর জারের কাপড় খুলে চা–চামচ দিয়ে রসুনগুলো নেড়ে দিন। আবার মুখ বেঁধে রেখে দিন আরও এক সপ্তাহ। এরপর আবারও জারের মুখ খুলে রসুনগুলো নেড়ে দিন। এভাবে আরও তিন সপ্তাহ করুন। মোট এক মাস সময় হলেই রসুন-মধু ফারমান্টেড হয়ে খাবার উপযুক্ত হয়ে যাবে। এই গাঁজানো রসুন-মধুর জারটিকে স্বাভাবিক তাপমাত্রায় রাখতে হবে। কোনোভাবেই গরম করা যাবে না, গরম জায়গায় রাখা যাবে না, এমনকি ফ্রিজেও রাখা যাবে না।

ব্যবহারবিধি

গাঁজানো রসুন-মধু টনিকটি দিনের যেকোনো সময় খেতে পারবেন। দিনে এক কোয়া রসুনসহ এক চা–চামচ মধু সেবনযোগ্য।

উপকারিতা

বিকল্প প্রাকৃতিক অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল ড্রাগ

২০১৩ সালের একটি গবেষণা প্রতিবেদনে প্রকাশিত হয়েছে যে তাজমা মধুর (স্টিংলেস মৌমাছির ইথিওপিয়ায় উত্পাদিত মধু) সঙ্গে মিশ্রণে রসুনের যে শক্তিশালী অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল গুণ রয়েছে, তা গবেষকেরা উদ্ঘাটন করেন। তাঁরা দেখতে পান যে রসুন-মধুর মিশ্রণ সালমোনেল্লা, স্টাফিলোকক্কাস অরিয়াস, লায়রিয়া মনসিটিজেনস ও স্ট্রেপ্টোকক্কাস নিউমোনিয়ার বিরুদ্ধে কার্যকর।

ভেষজ টনিক এই ব্যাকটেরিয়াগুলোর বৃদ্ধিতে বাধা সৃষ্টি করে, যা প্যাথোজেনিক ব্যাকটেরিয়াল সংক্রমণের কারণ করে। অন্য একটি গবেষণায় এই ফলাফলের সত্যতা নিশ্চিত করেছে এবং এ–ও প্রমাণ করেছে যে যখন গাঁজানো রসুন-মধু একসঙ্গে ব্যবহার করা হয়, তখন তারা একে অপরের জীবনযাত্রাকে দীর্ঘায়িত বা উন্নত করে, নিজের গুণকে বৃদ্ধি করে।

গাঁজানো রসুন-মধু সংগ্রহ করতে এখানে ক্লিক করুন

হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি হ্রাস

রসুন, তাজা, গুঁড়া—বিভিন্নরূপে দীর্ঘকাল ধরে শক্তিশালী প্রাকৃতিক খাবার হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে, যা হৃৎপিণ্ডের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে সহায়তা করে। গবেষণায় দেখা যায়, রসুন রক্তচাপ ও কোলেস্টেরলের মাত্রা হ্রাস করতে সহায়তা করে। পাশাপাশি রক্ত জমাট বাঁধাও প্রতিরোধ করে। একইভাবে মধু ফিনলিক যৌগে সমৃদ্ধ, যা প্রাকৃতিক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে ও কার্ডিওভাসকুলার স্বাস্থ্যের উন্নতিতে সহায়তা করে। এ কারণে হৃদরোগজনিত সমস্যায় গাঁজানো রসুন-মধু অনেক বেশি ঔষধি হিসেবে কাজ করে, রক্ত সাবলীল থাকার কারণে হার্টে ব্লক হওয়ার প্রবণতা কমে যায়। যাদের ব্লক আছে, তা আর বাড়তে দেয় না। হার্টরেট ঠিক রাখে, যাতে শরীরে কোনো অস্থিরতা তৈরি না হয়।

প্রাকৃতিক ঠান্ডা ও ফ্লু থেকে মুক্তি দেয়

মধুর শক্তিশালী অ্যান্টিভাইরাল বৈশিষ্ট্য রয়েছে। রসুনের প্রধান উপাদান অ্যালিসিন শরীরের শ্বেত রক্ত কোষে রোগ প্রতিরোধের প্রতিক্রিয়া উন্নত করতে সহায়তা করে। বিশেষত, যখন তাদের মধ্যে সাধারণ সর্দি ও ফ্লু হওয়ার কারণ রয়েছে, এমন ভাইরাসের মুখোমুখি হয়। গাঁজানো রসুন, বিশেষত সর্দি ও ফ্লুর তীব্রতা হ্রাস করতে সহায়তা করে। যাঁরা বছর ধরে ঠান্ডা বা ফ্লুতে আক্রান্ত থাকেন, তাঁদের জন্য এটা বিকল্প ওষুধ হিসেবে কাজ করে। নিয়মিত খেলে আস্তে আস্তে ঠান্ডা লাগার প্রবণতা কমে আসবে। শিশুদের ঠান্ডা লাগার ক্ষেত্রেও বিশেষ উপকারী।

রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বৃদ্ধি করে
আমরা জানি, আমাদের রোগ প্রতিরোধক্ষমতার একটি বড় আশ্রয় হলো আমাদের শরীরে ইমিউন সিস্টেম। এই ইমিউন সিস্টেমকে সঠিক রাখার জন্য গাঁজানো রসুন-মধু বিশেষ ভূমিকা রাখে। আমাদের শরীরে রক্তপ্রবাহ ও শরীরে পিএইচের মাত্রা স্থিতিশীল রেখে ইমিউন সিস্টেমকে প্রভাবিত করে, যা আমাদের শরীরে রোগ প্রতিরোধের দুর্গ তৈরি করতে সহায়তা করে।

অন্যান্য স্বাস্থ্যসুবিধার মধ্যে রয়েছে

• ওজন হ্রাস-বৃদ্ধি করতে পারে।
• মস্তিষ্কের স্বাস্থ্য রক্ষা করতে পারে।
• ইরেকটাইল ডিসফাংশনের প্রাকৃতিক নিরাময় হিসেবেও কাজ করে।
• মুড ভালো রাখে।
• শরীরে কফ জমতে পারে না, যা শিশুদের খুবই প্রয়োজন।
• রক্তে চিনির প্রভাবকে নিয়ন্ত্রণ করে মাথা ঠান্ডা রাখে।
• স্মরণশক্তি হ্রাসের প্রবণতা কমায়।
• এনার্জি লেবেল বজায় রাখে।

আরেকটা দিক দেখে নেওয়া ভালো

সাধারণত, ভেষজ প্রতিকার হিসেবে মধুতে রসুন অল্প পরিমাণে থাকে। এই মিশ্রণ ক্ষতিকারক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া তৈরি করতে পারে না। আপনার নিশ্বাসে দুর্গন্ধ বা সম্ভবত শরীরের গন্ধ থাকতে পারে। অতিরিক্ত পরিমাণে, কাঁচা রসুন অম্বল বা অস্থির পেটের কারণ হতে পারে। রসুন ও মধু উভয়ই নির্দিষ্ট ব্যক্তির জন্য অ্যালার্জির কারণ হতে পারে। পরাগজনিত অ্যালার্জি যাদের আছে, তাদের মধু খাওয়ার সময় সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। মধুতে প্রাকৃতিক চিনি থাকে; তাই ডায়াবেটিসের রোগীদের পরিমিত খাওয়া উচিত।

এই গাঁজানো রসুন-মধুর উপকার পেতে হলে খাঁটি মধুর বিকল্প নেই। আর দেশি এক কোয়া রসুন আদর্শ।

লেখক: খাদ্য, পথ্য ও আকুপ্রেসার বিশেষজ্ঞ

গাঁজানো রসুন-মধু সংগ্রহ করতে এখানে ক্লিক করুন

সরাসরি প্রথম আলো থেকে পড়তে এখানে ক্লিক করুন

স্বাস্থ্যকর নয় ঠান্ডা পানি

স্বাস্থ্যকর নয় ঠান্ডা পানি

এই গরমে ঠান্ডা পানি যেন সুহৃদ। বাইরে থেকে ফিরে ঘর্মাক্ত অবস্থায় ফ্রিজ থেকে বের করে ঢক ঢক করে পান করে ফেলি ঠান্ডা পানি। অথচ এর কুফল সম্পর্কে আমরা অবহিত থাকি না।