শিগেলোসিস : কারণ, লক্ষণ, চিকিৎসা ও প্রতিরোধ

শিগেলোসিস : কারণ, লক্ষণ, চিকিৎসা ও প্রতিরোধ

ব্যাকটেরিয়া সংক্রমিত শিগেলোসিস বা রক্ত আমাশয় আমাদের হজম ক্ষমতাকে ব্যাহত করে। এটি শিগেলা নামক একটি ব্যাকটেরিয়ার গোষ্ঠীর দ্বারা হয়। শিগেলা দূষিত জল এবং খাবার বা দূষিত মলের মাধ্যমে মানবদেহে ছড়িয়ে পড়ে। পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুদের শিগেলা সংক্রমণ হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি থাকে, যদিও এটি যেকোনও বয়সেই হতে পারে। সাধারণত ছোটো বাচ্চাদের মধ্যে দেখা যায় কারণ তারা প্রায়ই নিজেদের আঙ্গুলগুলি মুখে ঢুকিয়ে রাখে। তাই, ব্যাকটিরিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

শিগেলোসিসের লক্ষণসমূহ
এই রোগের প্রাথমিক লক্ষণ হল ডায়রিয়া। ব্যাকটেরিয়া সংস্পর্শে আসার এক বা দুই দিন পর থেকে লক্ষণগুলি দেখা দেয়। তবে, এটি বিকাশ হতে এক সপ্তাহ পর্যন্ত সময় নিতে পারে।

শিগেলোসিসের সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণগুলি হল-
ক) ডায়রিয়ার সাথে প্রায়ই রক্ত ​​বা শ্লেষ্মা বেরোয়
খ) জ্বর
গ) পেটে ব্যথা বা টান অনুভব করা
ঘ) বমি বমি ভাব বা বমি হওয়া

শিগেলোসিসের কারণ
ব্যাকটিরিয়া যখন আমাদের পাচন পদ্ধতিতে প্রবেশ করে তখন সংক্রমণটি বিকাশ লাভ করে। ব্যাক্টেরিয়াগুলি বিষক্রিয়া ছড়াতে থাকে যার কারণে অন্ত্র জ্বালা করে। এর কারণগুলি হল –
ক) হাত না ধুয়ে খাওয়া বা মুখে ছোঁয়া
খ) দূষিত খাবার খাওয়া
গ) দূষিত জল পান করা

শিগেলোসিসের ঝুঁকির কারণ
ক) বয়স
খ) শিগেলা ব্যাকটেরিয়া সংক্রমিত ব্যক্তির সঙ্গে সংস্পর্শে আসার ফলে এটি ছড়িয়ে পড়তে পারে।
গ) বাচ্চাদের যত্ন নেওয়া হয় এইরকম কেন্দ্রগুলিতে, কমিউনিটি ওয়েডিং পুল, নার্সিংহোম, জেল ইত্যাদিতে শিগেলার প্রাদুর্ভাব বেশি দেখা যায়।
ঘ) স্যানিটেশনের অভাব রয়েছে এমন অঞ্চলে থাকা।

শিগেলোসিসের নির্ণয়
এই অবস্থার প্রাথমিক লক্ষণ হল ডায়রিয়া, যা অন্যান্য ডিজিজকেও চিন্হিত করতে পারে। রোগীর শিগেলোসিস হয়েছে কি না তা নিশ্চিত করতে একজন চিকিৎসক রোগীর ইতিহাস ও বিভিন্ন পরীক্ষা করেন। শিগেলা ব্যাকটিরিয়া বা টক্সিনের উপস্থিতির জন্য চিকিৎসক রোগীর মল পরীক্ষা করারও পরামর্শ দেন।

শিগেলোসিসের চিকিৎসা
এই সংক্রমণ সাধারণত পাঁচ থেকে সাত দিনের মধ্যে চলে। এর চিকিৎসাগুলি হল –
ক) তীব্র শিগেলা সংক্রমণের ক্ষেত্রে, অ্যান্টিবায়োটিকগুলি অসুস্থতার সময়কাল হ্রাস করতে সাহায্য করতে পারে। তবে, চিকিৎসকরা অ্যান্টিবায়োটিক সেবনের বিরুদ্ধে পরামর্শ দেন কারণ কিছু শিগেলা ব্যাকটিরিয়া ড্রাগ-প্রতিরোধী তাই কেবল সংক্রমণ তীব্র হলেই অ্যান্টিবায়োটিক সেবন করার পরামর্শ দিয়ে থাকেন।
খ) স্বাস্থ্যকর প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য, ডায়রিয়ার নানান প্রভাবগুলি প্রতিরোধ করার জন্য জল পান করা যথেষ্ট। বাচ্চারা ওরাল রি-হাইড্রেশন সমাধান থেকে উপকৃত হতে পারে। গুরুতরভাবে ডিহাইড্রেটেড ব্যক্তিদের জন্য চিকিৎসার প্রয়োজন।

শিগেলোসিস প্রতিরোধ
শিগেলার ভ্যাকসিন তৈরির জন্য এখনও গবেষণা চালানো হচ্ছে।
তবে, এইমূহূর্তে চিকিৎসকরা এই অবস্থার সূত্রপাত রোধ করতে নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলির পরামর্শ দেয়-
ক) ছোটো বাচ্চাদের হাত ধোওয়ার সময় খেয়াল রাখুন
খ) ঘন ঘন, ভাল ভাবে হাত ধোবেন
গ) দূষিত পুকুর, সুইমিং পুল এড়িয়ে চলুন
ঘ) ডায়রিয়ায় আক্রান্ত এমন ব্যক্তির সঙ্গে যৌন ক্রিয়াকলাপ এড়িয়ে চলুন
ঙ) আপনার ডায়রিয়া হলে অন্যের জন্য খাবার প্রস্তুত করবেন না
চ) ব্যবহৃত ডায়াপার সঠিকভাবে নিষ্পত্তি করুন