অতিরিক্ত অ্যাসিড ক্ষরণ মুড়ি-মুড়কির মতো অ্যান্টসিড গিলে বিপদ বাড়াবেন না

অতিরিক্ত অ্যাসিড ক্ষরণ মুড়ি-মুড়কির মতো অ্যান্টসিড গিলে বিপদ বাড়াবেন না

অতিরিক্ত অ্যাসিড ক্ষরণকে সহজ কথায় হাইপার অ্যাসিডিটি বলা হয়। এটা একটা কমন সিমটম। আজকাল বহু রোগী এই ধরনের উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসকের কাছে আসেন। বলেন, ভীষন রকম অ্যাসিডিটি হচ্ছে।

আমাদের শরীরে পাকস্থলি অ্যাসিড তৈরি করে। সেই অ্যাসিডের পরিমাণ দৈনিক প্রায় দুই থেকে আড়াই লিটারের মতো। এই অ্যাসিডের বেশির ভাগটাই খাবার হজম করতে কাজে লাগে আর বাকিটা কোলনের দিকে ট্রান্সপোর্টেড হয়ে যায়।

অ্যাসিড যখন বেশি সিক্রেশন হয় বা অ্যাসিডের প্রতি যখন সেনসিটিভিটি বেড়ে যায় অথবা এই অ্যাসিড যখন অস্বাভাবিক জায়গায় যেমন প্রকস্থলি বা স্টমাকের অ্যাসিড ইসোফেগাস বা বুকের ফুড পাইটে (খাদ্যনালীতে) উঠে আসে তখনই আমাদের অতিরিক্ত অ্যাসিড বা হাইপার অ্যাসিডিটির লক্ষণ দেখা দেয়।

সাধারণত অ্যাসিড সিক্রেশন হয় প্যারাইটাল সেল থেকে আর অ্যাসিড সিক্রেশনকে নিয়ন্ত্রণ করে জি সেল। জি সেল থেকে একটা খুব শক্তিশালী গ্যাস্ট্রিন নামের হরমোন বেরোয়, তারা প্যারাইটাল সেলের অ্যাসিড সিক্রেশনকে নিয়ন্ত্রণ করে।

সুতরাং কারো যদি প্যারাইটাল সেল হাইপার প্লাসিয়া হয়, গ্যাস্ট্রিন জি সেল হাইপারপ্লাসিয়া হয় তবে অ্যাসিড সিক্রেশনটা বেশি হয়, যা কিন হয় কিছু কিছু ক্ষেত্রে টিউমারের জন্য, কিছু কিছু ক্ষেত্রে ওষুধ খাওয়ার জন্য, কিছু ক্ষেত্রে আবার দক্ষিণ এশিয়া ও ভারতীয়দের মধ্যে কোনো কারণ ছাড়াই হতে দেখা যায়। অর্থাৎ জি সেল হাইপারপ্লাসিয়া বা জি সেলের অতিরিক্ত কাজ বা প্যারাইটাল সেল হাইপারট্রফি বা প্যারাইটাল সেল যে অতিরিক্ত কাজ করে তার কারণে অ্যাসিড সিক্রেশন বেশি হয়ে থাকে। কিছু কিছু রোগ যেমন মিনেট্রির ডিজিজের মতো রেয়ার অসুখে অ্যাসিড সিক্রেশনটা বেশি হয়। কিছু খাবার যেমন তেল, ঝাল, মশলাযুক্ত খাবার, টক জাতীয় খাবার, ভাজাভুজি, তেলের জিনিস, সরষে বা বাদাম, নারকেল, চাটনি, কিছু ক্ষেত্রে উত্তেজক পানীয় কফির মতো খুবই উপাদেয় খাবার খেলে আমাদের অ্যাসিড সিক্রেশন বাড়ে। সুতরাং এইসব জিনিস খাবার পর রোগীরা বুঝতে পারে হাইপার অ্যাসিডিটি হয়েছে।

কিছুক্ষেত্রে দেখা গেছে অনেকক্ষণ খালি পেটে থাকার কারণে অ্যাসিড পাকস্থলিকে ড্যামেজ করে এবং অ্যাসিডের লক্ষণ দেখা দেয়।

কিছু রোগ পাকস্থলির ডিফেন্স মেকানিজম নষ্ট হয়ে যায়। অ্যাসিডের ড্যামেজিং প্রক্রিয়া নষ্ট হয়ে যাওয়ার কারণে নার্ভগুলো এক্সপোজ হয়ে যায়। কারো যদি আলসার থাকে, তাহলে আলসারের কারণে ঘা হয়ে যায় ফলে ওপরের মিউকোসাটা নষ্ট হয়ে যাবার কারণে নীচের সাবমিউকোসা বেরিয়ে যায়। আর সেখানে নার্ভগুলো এক্সপোজেড হয়ে যায় সরাসরি।

সাধারণত মিউকোসা এবং তার ওপরের যে মিউকাস লেয়ার এবং কিছু কিছু হরমোন নার্ভগুলো অ্যাসিডের সংস্পর্শে আসতে দেয় না। কিন্তু যখন কোনো কারণে আলসার বা ড্যামেজ বা ইরোসান বা ঘা হয়ে মিউকোসা ক্ষতিগ্রস্ত হয় তখনই নার্ভগুলো অ্যাসিডের সংস্পর্শে আসে।

এই কারণে নার্ভগুলো তখন হাইপার সেন্সিটিভ হয়ে যায় এবং অ্যাসিডের লক্ষণ প্রকাশ পায়।

কিছু ক্ষেত্রে এক জায়গা অ্যাসিড অন্য জায়গায় গিয়ে পড়ে। যেমন রিফ্লাক্স ডিজিজে ইসোফেগাস বা ফুডপাইপে এসে পৌঁছয় তখনই হাইপার অ্যাসিডিটি হয়। সাধারণত ইসোফেগাস অ্যাসিডে অভ্যস্ত নয়, তার কাছে অ্যাসিড এসে পড়লে অতিরিক্ত বা অস্বাভাবিক লক্ষণ প্রকাশ পায়। একেই হাইপার অ্যাসিডিটি বলে।

হাইপার অ্যাসিডিটির পেছনে অনেক সময় কিছু রেয়ার কারণ থাকে। প্যারাইটাল সেল অ্যাসিড তৈরিটাকে নিয়ন্ত্রণ করে। অতিরিক্ত কাজ করার কারণেও অস্বাভাবিক কিছু ডিজিজ বা টিউমার তৈরি হয়।

খালি পেটে থাকলে অ্যাসিড ড্যামেজ করার সুযোগ পায় এবং আলসার বা ইরোসন হয়ে নার্ভগুলো বেরিয়ে আসে এবং সমস্যা তৈরি করে। তেল, ঝাল, মশলা যুক্ত খাবার খাওয়ার কারণে অ্যাসিডের সিক্রেশনের পরিমাণ বাড়ে। অ্যাসিড যখন অস্বাভাবিক জায়গায় গিয়ে পড়ে যেমন রিফ্লাক্স ডিজিজে ইসোফেগাসে এসে পড়ে তখন আমাদের হাইপার অ্যাসিডিটির সূচনা হয়। লক্ষণ হিসাবে দেখা যায় বুক জ্বালা করা, মুখের মধ্যে টক জল আসা, ঢেকুর ওঠা ইত্যাদি।

বুক জ্বালা, বুকে ব্যথা হওয়া কার্ডিয়াক সিমটম বলে মনে হতে পারে বটে কিন্তু অ্যাসিডিটি থেকে হার্টের রোগ হয় না।

হাইপার অ্যাসিডিটি হলে ডাক্তারের কাছে যাওয়া উচিত। তিনি সমস্ত ইতিহাসটা জেনে কারণ জানতে চেষ্টা করেন। রোগীর খাওয়া-দাওয়ার ধরুন, তার জীবনযাত্রা, কোনো ওষুধ খাওয়া কি না ইত্যাদি। ওষুধের কারণে তার কোনো বিফ্লাক্স হচ্ছে কি না সেটাও দেখেন।

অ্যাসিডের চিকিৎসা মানে অ্যাসিড থেকে রিলিফ দেওয়া। এর জন্য অ্যান্টাসিড খেতে হবে প্রাথমিক অবস্থায়। দীর্ঘকালীন অ্যাসিডিটি চললে প্যান্টোপ্রাজল জাতীয় ওষুধ বা পি.পি.আই খুব ভালো কাজ করে। তবে এই ওষুধগুলো খেয়ে বেশিদিন সিমটমকে ধামাচাপা না দিয়ে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করা উচিত। আর ঠিক কী কারণে হাইপার অ্যাসিডিটি হচ্ছে সেটা জানা জরুরি। হাইপার অ্যাসিডিটির কারণে ক্যানসারের মতো রোগ হয় না ঠিকই তবে আলসার হতে পারে। তাই সাবধান হওয়ার দরকার তো আছেই।

সৌজন্যে: ‘সুস্বাস্থ্য’ – কলকাতা থেকে প্রকাশিত জনপ্রিয় স্বাস্থ্য বিষয়ক ম্যাগাজিন

টিপস্‌ – এ্যাসিডিটি – ২

টিপস্‌ – এ্যাসিডিটি – ২

আমাদের সমাজে এখন সবচেয়ে বেশি সমস্যায় ভুগেন এ্যাসিডিটি নিয়ে, এই নিয়ে মানুষের অভিযোগের শেষ নেই, তেমনি পরামশের্র ও শেষ নেই। দেশের ঔষধের দোকানগুলিতে ৮০ ভাগ ঔষধই বিক্রি হয় এ্যাসিডিটির ঔষধ। কিন্তু মানুষ সুস্থ হয় না। দিনে দিনে ঔষধ বদলায় কিন্তু এ্যাসিডিটি কমে না।

কারণ কি ?

কারণ হচ্ছে আমাদের খাদ্যভাস। এই খাদ্যভাস নিয়ে ছোট কার্যকর পরামর্শ ।

আলমগীর আলম
প্রাকৃতিক নিরাময় কেন্দ্র

টিপস্‌ – এ্যাসিডির কারণ -২

টিপস্‌ – এ্যাসিডির কারণ -২

এ্যাসিডির থেকে মুক্ত থাকার অনেক উপায় থাকলেও এমন কিছু বিষয় আছে যা সহজেই করতে পারেন। এই জন্য কোন জটিল কিছু করতে হবে না।

শুধু এ্যাসিডিটি নিয়ে আর দেরি নয়, এখনই চেষ্টা করুন।

আলমগীর আলম
প্রাকৃতিক নিরাময় কেন্দ্র

টিপস্‌ – এ্যাসিডির কারণ -১

টিপস্‌ – এ্যাসিডির কারণ -১

আমাদের সমাজে এখন সবচেয়ে বেশি সমস্যায় ভুগেন এ্যাসিডিটি নিয়ে, এই নিয়ে মানুষের অভিযোগের শেষ নেই, তেমনি পরামশের্র ও শেষ নেই। দেশের ঔষধের দোকানগুলিতে ৮০ ভাগ ঔষধই বিক্রি হয় এ্যাসিডিটির ঔষধ। কিন্তু মানুষ সুস্থ হয় না। দিনে দিনে ঔষধ বদলায় কিন্তু এ্যাসিডিটি কমে না।

কারণ কি ?

কারণ হচ্ছে আমাদের খাদ্যভাস। এই খাদ্যভাস নিয়ে ছোট কার্যকর পরামর্শ ।

আলমগীর আলম
প্রাকৃতিক নিরাময় কেন্দ্র

টিপস্‌ – এ্যাসিডিটি

টিপস্‌ – এ্যাসিডিটি

যারা এ্যাসিডিটি সমস্যায় ভুগছেন, নানান ঔষধ খাচ্ছেন, কিন্তু কোন সুরাহা হচ্ছে না, দিনে দিনে ঔষধের পাওয়ার বাড়ছে কিন্তু সমাধানে যাচ্ছে না।

তারা এই টিপসটি ফলো করে দেখতে পারেন। কারণ এই আদায় রয়েছে মেটবলিক সিষ্টেমকে শক্তিশালি করার ক্ষমতা, যা আপনার পুরোনো পেটের সমস্যা ধীরে ধীরে ঠিক করে দেবে।

আলমগীর আলম
প্রাকৃতিক নিরাময় কেন্দ্র।