দীর্ঘক্ষণ চেয়ারে বসে কাজ, শিরদাঁড়ার ক্ষয় হয়।

দীর্ঘক্ষণ চেয়ারে বসে কাজ, শিরদাঁড়ার ক্ষয় হয়।

কাজের চাপে কুঁজো হয়ে যাচ্ছেন অনেকেই। অনেকে, মানে অফিসজীবীদের প্রায় ৭০ শতাংশ! সরকারি পুষ্টি সংস্থা ন্যাশনাল হেলথ অ্যান্ড নিউট্রিশনের সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে, দিনের প্রায় ছ’ঘণ্টা যাঁরা চেয়ারে বসে কাজ করেন, মেরুদণ্ড নুয়ে পড়ছে মূলত তাঁদেরই। আর এঁদেরই ভিড় উপচে পড়ছে অস্থি চিকিৎসকদের চেম্বারে চেম্বারে। দেখা দিয়েছে নতুন অসুখ ‘পুওর পশ্চার সিনড্রোম।’ উপসর্গ, কাঁধে, পিঠে অসহ্য ব্যথা।

দীর্ঘক্ষণ চেয়ারে বসে কাটানোই কাল হয়েছে! হাজারো মানুষের দিনের বেশিরভাগ সময়টা কাটে অফিসের চেয়ারে বসে। টেরও পান না, কিভাবে শরীরের ক্ষতি হচ্ছে। যখন হুঁশ ফেরে ততদিনে বেশিরভাগেরই মেরুদণ্ডের আকৃতি বদলে গিয়েছে।”


রোগীদের কেস হিস্ট্রি দেখে বিশেষজ্ঞরা বুঝেছেন, সমস্যার লুকিয়ে চেয়ারের ভেতরেই। এখন সমস্ত অফিসেই কম্পিউটার। সামনের দিকে ঝুঁকে কম্পিউটারে টাইপ করেন সকলে। মেরুদণ্ডের স্বাভাবিক একটা কার্ভ বা গঠন রয়েছে। এক নাগাড়ে চেয়ারে বসে কাজ করলে মেরুদণ্ডে চাপ পড়ে। সেখান থেকেই ব্যথার শুরু। একদিন আচমকাই বেঁকে যায় শিরদাঁড়া।”

তাহলে উপায়?
“টানা দেড় ঘণ্টার বেশি চেয়ারে বসে কাজ করা উচিত নয়।” রয়েছে চেয়ারে বসার কিছু নির্দিষ্ট নিয়মও। কী সেই নিয়ম? চোখ থাকতে হবে কম্পিউটারের সঙ্গে এক মাত্রায়। বুকের কাছাকাছি থাকতে হবে কি-বোর্ড। এই অবস্থাতেই মেরুদণ্ড সোজা রেখে কাজ করা যায়।
বেশিরভাগ অফিসেই কোনওরকম ভাবে টেবিলে কম্পিউটার রেখে একটা চেয়ার বসানো। মাত্রা বা ‘লেভেল’ ঠিক করার কোনও বিষয় নেই।

“পাবলিকের মধ্যেই সচেতনতার অভাব। নড়বড়ে চেয়ারে বসে কাজ করে চলেন। দাঁড়িয়ে থাকলেও শিরদাঁড়ায় অতটা চাপ পরে না, যতটা পড়ে অবৈজ্ঞানিক এই সমস্ত চেয়ারে বসে। শরীরে রক্ত সঞ্চালনেও সমস্যা তৈরি করে এই ধরনের বসার ভঙ্গিমা।” ভুল চেয়ার হিপ ফ্লেক্সর, ইলিওপসাস পেশিতে চাপ তৈরি করে। চাপের মধ্যে থাকে নিতম্বের বাটক মাসলও। এই পেশিগুলি শিঁড়দাড়াকে সোজা রাখতে সাহায্য করে। চুলে পাক ধরার আগেই তাই হাতে উঠে আসে লাঠি।

চিকিৎসকরা বলছেন, স্পাইনাল লিগামেন্ট গার্ডারের মতো। একটি নির্দিষ্ট সীমা পর্যন্ত ‘স্ট্রেচ’ করতে পারে। কিন্তু অফিসের অবৈজ্ঞানিক চেয়ারে দীর্ঘক্ষণ বসলে চাপ পড়ে সেই লিগামেন্টে। শহরের অনেক অফিস সমস্যা মেটাতে এখন এরগোনোমিক চেয়ার কিনছে। অস্থি বিশেষজ্ঞরা কিন্তু বলছেন, চেয়ার যাই হোক, একটানা বসে থাকা মোটেই স্বাস্থ্যকর নয়। বরং দেড় দু’ঘণ্টা বসে থাকার পর উঠে হেঁটে আসতে  বলছেন তাঁরা।

আকুপ্রেসার করুন নিয়মিত, বাসায় একটি আকপ্রেসার ফুটরোলার রাখুন, প্রতিদিন, সকালে এবং রাতে আকুপ্রেসার ফুটরোলার পায়ে ঘষান। দেখবেন ঠিক হয়ে যাবে কোমড়ের, ঘাড়ের ও হাঁটুর ব্যথা।

Alamgir Alam
Expert of Acupressure, Naturopathy
29 Bangabandhu Avenue, Dhaka

সুস্থ থাকার চাবিকাঠি আপনার হাতেই

সুস্থ থাকার চাবিকাঠি আপনার হাতেই

নিজের হাতের তালু ও আঙুলগুলির দিকে ভাল করে তাকান। কী দেখতে পাচ্ছেন? উত্তরে যদি বলেন, শুধু হাতটাই দেখছেন, তাহলে ভুল দেখেছেন। কারণ আপনার হাতেই লুকিয়ে রয়েছে জাদু। না, সেই জাদু প্রয়োগের জন্য আপনাকে পেশাদার জাদুকর হতে হবে না। খাবার খাওয়া, লেখালিখি, বুনন ইত্যাদির জন্য যেমন নিজের হাতকে ব্যবহার করেন, তেমনভাবে একে কাজে লাগিয়ে মুক্তি পেতে পারেন বিভিন্ন রোগ যন্ত্রণা থেকেও। অর্থাৎ হাতের সঠিক ব্যবহার জানা থাকলে কথায় কথায় আর ওষুধ খেতে হবে না। রাতবিরেতে ডাক্তারের কাছেও ছুটতে হবে না। গবেষণা বলছে, নিখরচায় সুস্থ জীবনযাপন করতে আপনার হাত বড় ভূমিকা নিতে পারে। ভাবছেন তো, এমনটা কীভাবে সম্ভব?

সুস্থ থাকার চাবিকাঠি

বুড়ো আঙুল: মাথায় অসহ্য যন্ত্রণা? কোনও কারণে অত্যন্ত উত্তেজিত হয়ে আছেন? এর কারণ হতে পারে আপনার বুড়ো আঙুল। বাঁ-হাতে বুড়ো আঙুলকে ডান হাত দিয়ে (অথবা উলটোটা) পাঁচ মিনিটের জন্য চেপে ধরে থাকুন। পাঁচ মিনিট পর যন্ত্রণা অনেকটাই কম অনুভূত হবে।

সুস্থ থাকার চাবিকাঠি

তর্জনি: হতাশা, ভয় এবং লজ্জা দূর করতে এই আঙুলের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। পাশাপাশি পেশির কোনও অংশে ব্যথাও দূর করতে পারে হাতের এই আঙুল। মিনেসোটা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গবেষণা থেকে জানা গিয়েছে, রোগীদের পিঠ ও পেশির ব্যথার দারুণ কাজ দেয় আঙুলের রিফ্লেক্স থেরাপি। এর জন্য একইভাবে পাঁচ মিনিটের জন্য তর্জনিকে চেপে ধরে রাখতে হবে।

সুস্থ থাকার চাবিকাঠি

মধ্যমা: ধরুন, প্রেমিকের সঙ্গে মন কষাকষি বা দাম্পত্য কলহে বেশ মেজাজ গরম। অথবা অন্যান্য দিনের থেকে বেশি খাটনি হওয়ায় বেশ ক্লান্ত হয়ে পড়েছেন। গবেষণা বলছে, এর থেকে মুক্তি পেতে প্রয়োজন মধ্যমার এক্সারসাইজ। পাঁচ মিনিট মধ্যমা চেপে ধরে রাখলে রক্তচাপ খানিকটা কমে। যা আপনার মাথা ঠান্ডা করে আপনাকে শান্ত করে।

সুস্থ থাকার চাবিকাঠি

অনামিকা: দুশ্চিতা ও দুঃখ দূর করতে দারুণ কাজ দেয় রিফ্লেক্স থেরাপি। যা প্রয়োগ করতে হয় অনামিকার উপর। পাঁচ মিনিট আঙুলটি চেপে ধরে রাখলেই অনেকটা স্বস্তি বোধ করবেন আপনি। পরীক্ষা করে দেখুন, আপনার শ্বাসপ্রশ্বাস দ্রুত স্বাভাবিক হবে।

সুস্থ থাকার চাবিকাঠি

কনিষ্ঠা: খারাপ চিন্তা, ক্লান্তি দূর করতে পারে কনিষ্ঠা। পাঁচ মিনিট কনিষ্ঠা চেপে রাখার সময় অবশ্যই মনে মনে ভাল কিছু চিন্তা করুন।

সুস্থ থাকার চাবিকাঠি

হাতের তালু: এক হাত দিয়ে অন্য হাতের তালুতে রাখুন। এবার খুব ধীরে ধীরে গোল করে তালুতে মাসাজ করুন। এই প্রক্রিয়ার সময় জোরে নিঃশ্বাস-প্রশ্বাস নিন। রিফ্লেক্সোলজিস্টদের মতে, আপনার আবেগ ও অনুভূতি তালুতে বন্দি থাকে। গবেষণা বলছে, নিয়মিত তালুতে মাসাজ করলে ক্লান্তি, ডায়রিয়া এমনকী কোষ্ঠকাঠিন্যও দূরে থাকে।

সুস্থ থাকার চাবিকাঠি

জোড়া তালু: সাধারণত ধ্যান করার সময় হাত জড়ো করা হয়ে থাকে। এতে মনোসংযোগ বাড়ে। হাতের তালু পরস্পরের সঙ্গে চাপলে শরীরের রক্ত চলাচলও স্বাভাবিক থাকে।

সুস্থ থাকার চাবিকাঠি

সূর্য মুদ্রা: হাত সোজাভাবে রেখে শুধু অনামিকা তালুতে ঠেকিয়ে রাখা সূর্য মুদ্রা হিসেবে পরিচিত। এই প্রক্রিয়া হজম শক্তি ও খিদে বাড়ায়।

Alamgir Alam
Expert of Acupressure and Naturopathy
29 Bangabandhu Avenue, 2nd Floor, Dhaka

হাতে তালি, উপকারের থালি !

হাতে তালি, উপকারের থালি !

দৈনন্দিন জীবনে প্রায়ই আমরা যখন উৎসাহব্যঞ্জক কোনো কিছু শুনি তখন হাততালি দেই। এটা অতি সাধারণ ব্যাপার। আপনি জানলে অবাক হবেন প্রতিদিন মাত্র কয়েক মিনিট হাততালি দিলে আপনার শরীরের অভ্যন্তরীণ কার্যক্রম আগের চেয়ে সক্রিয় ও সচল হয়ে উঠবে। নানারকম রোগব্যাধি থেকে মুক্ত হয়ে দেহ-মনে অনুভব করবেন প্রাণবন্ততা।

হাস্যকর শোনালেও আকুপ্রেশারের এ তত্ত্বটি দারুণ কাজের। হাততালি দিলে শরীরের রক্তচলাচলে বাধা দূর হয়ে যায়। সব বয়সি নারী-পুরুষের রক্তচলাচল স্বাভাবিক হয়ে ওঠে। এমনকি অনেক রোগ সারাতেও হাততালি কার্যকর। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রতিদিন আধঘণ্টা করে হাততালি দিলে নানা উপকার পাওয়া যায়। উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, বিষণ্নতা, অনিদ্রা, মাথাব্যথা, বাত ও কোষ্ঠকাঠিন্যর মতো সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে নিয়মিত হাততালি দেওয়ার অভ্যাস করতে পারেন। এমন আরো অনেক উপকারিতা রয়েছে হাততালির মধ্যে। হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে পারে হাততালি। এছাড়া অ্যাজমার মতো নানা সমস্যায় হাততালি দিলে উপকার পাওয়া যায়।

বিভিন্ন প্রোগ্রামে দেখা যায়, হাততালি দেয়ার সময় কারো কারো ক্ষেত্রে এক হাতের সঙ্গে আরেক হাতের তালুর স্পর্শ হলেও সেখানে কোনো শব্দ হয় না। এ ধরনের হাততালির কোনো উপকারিতা নেই। আর তাই হাততালি দেওয়ার সময় এমন ভাবে দিন যাতে আশপাশের মানুষ বুঝে এখানে কিছু একটা হচ্ছে। বিষয়টাকে আবার অন্যভাবে বুঝলে ভুল করবেন। লিঙ্গ প্রতিবন্ধীদের একটি সংকেত হচ্ছে এভাবে তালি দেওয়া। এটা তাদের একটি যোগাযোগের মাধ্যমে। সেই দিকে না যাই। একা একা হাততালি দেওয়ার চেয়ে একসঙ্গে কয়েকজন মিলে হাততালি দিলে অবশ্য কেউ তেমন কিছু মনে করবে না।

চীনা চিকিৎসা পদ্ধতি আকুপ্রেশারের সময় হাতের তালুর বিভিন্ন অংশে চাপ দেওয়া হয়। কখনো খালি হাতে আবার কখনো একটি বিশেষ ধরনের কাঠি ব্যবহার করে। এতে করে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সুস্থ হয়ে ওঠে। একইভাবে শুধুমাত্র হাততালির মাধ্যমেও হাতের বিভিন্ন পয়েন্টে চাপ পড়ে। এতে করে আপনি আকুপ্রেশারের মতো সমানভাবে উপকৃত হতে পারেন। আর তাই প্রতিদিন যেকোনো খুশির সংবাদে সবাই মিলে একসঙ্গে হাততালি দিতে পারেন। একা একা হাততালি দিতে গেলে বিড়ম্বনায় পড়তে হতে পারে। তাই বলে কি নিজের সুস্থতার জন্য হাততালি দেবেন না?

* কোনো খুশির খবর, জন্মদিন, বিবাহবার্ষিকীতে সবাই মিলে একসঙ্গে মিনিটখানেক হাততালি দিতে পারেন। সবাই মিলে একসঙ্গে হাততালি দিলে সেখানে এক ধরনের শব্দতরঙ্গ তৈরি হবে। পাশাপাশি আপনার শরীরের স্নায়ুগুলো আগের চেয়ে সক্রিয় হয়ে উঠবে। আপনি অনুভব করবেন দুই হাতের ঘর্ষণের ফলে শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যাবে। মনে ফুরফুরে অনুভূতি তৈরি হবে। স্ট্রেস থেকেও মুক্তি পাবেন।

* শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীর ভালো ফলাফলের/কাজের অনুপ্রেরণায় হাততালি দেওয়া যেতে পারে।

* খেলার মাঠে খেলোয়াড়দের উৎসাহ যোগাতে হাততালি দেওয়া যেতে পারে।

* কর্মস্থলে কোনো সহকর্মীর ভালো সংবাদে হাততালি দেওয়া যেতে পারে।
* দলগত কাজে সাফল্যের ক্ষেত্রে সবাই মিলে একসঙ্গে হাততালি দেওয়া যেতে পারে।
* বিভিন্ন ধরনের মিটিংয়ে উৎসাহব্যাঞ্জক কোনো প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে হাততালি দেওয়া যেতে পারে।
* বিশেষ করে শিশুদের উৎসাহ যোগাতে হাততালি একটি দারুন কার্যকর প্রক্রিয়া।
* প্রতিদিনের ব্যায়াম শেষে সবাই মিলে একসঙ্গে হাততালি দিয়ে বিদায় নিতে পারেন।

হাততালির উপকারিতার বিষয়ে বিস্তারিত জেনে নিই চলুন।

১। হৃদপিণ্ড ও ফুসফুসের সাথে জড়িত রোগ অ্যাজমা নিরাময়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে হাততালি দেয়া।
২। পিঠে ব্যথা, ঘাড়ে ব্যথা ও জয়েন্টের ব্যথা কমতে সাহায্য করে হাততালি দেয়া।
৩। গেঁটে বাত থেকে মুক্ত হতে সাহায্য করে হাততালি দেয়া।
৪। নিম্ন রক্তচাপের রোগীদের জন্য ও উপকারী হাততালি দেয়া।
৫। পরিপাকের সমস্যা সমাধানে কার্যকরী থেরাপি হাততালি দেয়া।
৬। শিশুদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে এবং একাডেমিক পারফর্মেন্সের উন্নতিতে সাহায্য করে হাততালি দেয়া। যে শিশুরা নিয়মিত হাততালি দেয় তাদের স্পেলিং মিস্টেক বা বানানের ভুল কম হয়। হাতের লেখার উন্নতিতেও সাহায্য করে হাততালি দেয়া।৭। শিশুদের মস্তিষ্ককে ধারালো হতে এবং কর্মঠ হতে সাহায্য করে হাততালি দেয়া।
৮। হাততালি দিলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় বলে রোগ ব্যাধি দূরে থাকে।
৯। ডায়াবেটিস, আরথ্রাইটিস, হাইপারটেনশন, চোখের সমস্যা, ডিপ্রেশন, দীর্ঘস্থায়ী মাথাব্যথা, সাধারণ ঠান্ডা, ইনসমনিয়া এবং চুল পড়ে যাওয়ার সমস্যায় ভুগছেন যারা তাদের জন্য উপকারী প্রতিদিন আধা ঘণ্টা হাততালি দেয়া।
১০। যাদের বাসায় এয়ার কন্ডিশন আছে এবং অফিসেও এসি রুমে বসে কাজ করেন তাদের শরীরে কম ঘাম হয়। তারা ক্লেপিং থেরাপি প্র্যাকটিস করতে পারেন। এর ফলে শরীরের রক্ত চলাচল ভালো হবে এবং শরীরের ছিদ্রগুলো উন্মুক্ত হয়ে অপ্রয়োজনীয় পদার্থ বের হয়ে যেতে সাহায্য করবে।


ক্ল্যাপিং থেরাপি
হাতের তালুতে নারিকেল তেল বা সরিষার তেল লাগিয়ে মালিশ করে নিন যাতে তেল শরীরে শোষিত হয়। এই থেরাপির ফলে শরীরে যে এনার্জি ওয়েভ তৈরি হবে তা যেন লিক হয়ে না যায় এজন্য মোজা ও চামড়ার তৈরি জুতা পড়ে নিন। দুই হাত প্রসারিত করে ডান হাত দিয়ে বাম হাতে আঘাত করুন। হাত সোজা রাখুন এবং কিছুটা ঢিলা রাখুন। দুই হাতের তালু ও আঙ্গুলগুলো যেন পরস্পর বারি খায় সেদিকে খেয়াল রাখুন। ভালো দলাফল পেতে এই থেরাপি সকালে করার চেষ্টা করুন।
প্রতিদিন সকালে ২০-৩০ মিনিট হাততালি দিলে আপনাকে ফিট ও সক্রিয় থাকতে সাহায্য করবে। আমরা আগেই জেনেছি যে হাততালি দিলে রক্ত চলাচল প্রক্রিয়া উদ্দীপিত হয়। আর রক্ত চলাচল প্রক্রিয়া ভালোভাবে হলে ধমনী ও শিরার বাঁধা এমন কি খারাপ কোলেস্টেরলও দূর হয়।

হাতের যে ৫ টি আকুপ্রেশার পয়েন্ট আলোড়িত হয় সেগুলো হল
হেন্ড ভ্যালি পয়েন্ট
বেজ অফ থাম্ব পয়েন্ট
রিষ্ট পয়েন্ট
ইনার গেট পয়েন্ট
থাম্ব নেইল পয়েন্ট

এই প্রেশার পয়েন্টগুলো উপরে উল্লেখিত স্বাস্থ্য উপকারিতাগুলোর সাথে সম্পর্কিত যাদেরকে হাততালি দেয়ার মাধ্যমে কার্যকরী করা যায়।

Alamgir Alam
Expert of Acupressure, Naturopathy
29 Bangabandhu Avenue, 2nd Floor, Dhaka.