গরমে হাঁচি-কাশি ও প্রতিকার

0
40

চলছে দুর্বিষহ গরম। এ গরমে অনেকেরই হাঁচি ও কাশিজনিত নানা উপসর্গ দেখা যাচ্ছে। হাঁচি-কাশি হলে অবশ্যই মনে রাখতে হবে, এটি রোগের পূর্ব লক্ষণ। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে হাঁচি-কাশি না কমাতে পারলে তা ধীরে ধীরে শ্বাসনালিতে প্রদাহসহ অন্যান্য সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। এ ঋতুতে হাঁচি-কাশি হলে খাওয়া-দাওয়ায় একটু পরিবর্তন আনতে হবে।

আপনার খাদ্য তালিকায় শর্করা, আমিষ, স্নেহের পাশাপাশি ভিটামিন ও মিনারেল-সমৃদ্ধ খাবার রাখুন। কারণ সুষম খাবার আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দেবে। হাঁচি-কাশি কমাতে ভিটামিন ‘সি’যুক্ত ফলমূল খান। এছাড়াও এই গরমে পর্যাপ্ত পানি খেতে হবে।

তুলসী পাতার রস, আদার রস, মধু বা আদা মেশানো চা হাঁচি-কাশি দূর করতে খুবই কার্যকর। হাঁচি-কাশির কারণে যদি খুব বেশি শারীরিক সমস্যা দেখা দেয়, তবে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে কিছু ওষুধ সেবন করুন ও সুস্থ থাকুন।

হাঁচি-কাশি একজন থেকে অন্যজনে ভাইরাসের মাধ্যমে খুব সহজেই সংক্রমিত হয়। তাই হাঁচি বা কাশি দেওয়ার সময় রুমাল বা টিস্যু ব্যবহার করতে হবে ও শিশুদের সামনে হাঁচি-কাশি দেওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে।

  • হাঁচি-কাশিমুক্ত থাকতে কী করবেন

  • গরমে হালকা পোশাক পরুন।

  • ঘেমে গেলে তা যত দ্রুত সম্ভব মুছে ফেলুন ও একটু ঠান্ডা স্থানে বিশ্রাম নিন।

  • ধুলাবালি এড়িয়ে চলুন।

  • ধুলাবালি ও ধোঁয়াযুক্ত রাস্তায় নাকে-মুখে মাস্ক ব্যবহার করুন।

  • পশুপাখি থেকে দূরে থাকুন।

  • গোসলের পর ভালোভাবে চুল শুকিয়ে নিন।

  • গোসলের পর সরাসরি ফ্যান কিংবা এসির নিচে থাকা যাবে না।

  • বাসায় বিছানার চাদর, পর্দা পরিষ্কার ও ধুলাবালিমুক্ত রাখতে হবে।

  • ধূমপান থেকে বিরত থাকুন।

  • আপনার সামনে অন্য কেউ অনবরত হাঁচি-কাশি দিলে আপনার নাক-মুখ রুমাল দিয়ে ঢেকে রাখুন।

  • খুব বেশি ঘেমে গেলে ঘর্মাক্ত অবস্থায় গোসল করা থেকে বিরত থাকুন।

SHARE

LEAVE A REPLY