বর্ষাকালের চারটি ফলের উপকারিতা

0
107

শুরু হয়ে হয়েছে বর্ষা, কেটে গেছে বেশ ক’টা দিন। রাজধানীর জলবদ্ধতার চিরায়ত অভিশাপ নিয়ে হাজির হয়েছে বর্ষা। আষাঢ় এবং শ্রাবণ এই দুই মাস মেঘ থাকবে— বৃষ্টি থাকবে— স্যাঁতসেতে রাস্তা থাকবে। তারপরও ঋতুবদলে প্রাপ্তি যোগ হবে না তা কেন! যেমন বর্ষায় বাজারে আসা শুরু করেছে নানান ফল। 

পেয়ারা
সুস্বাদু ফল হিসেবে পেয়ারার জনপ্রিয়তা বেশ। আর পেয়ারাটি যদি গাছপাকা হয় তাহলে তো কথাই নেই। ভিটামিন, মিনারেল, ক্যালরি, ভিটামিন-এ, আই ইউ, থিয়ামিন, নিয়াসিন, ভিটামিন-সি, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন। পেয়ারা মানবদেহ রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা উন্নত করে, ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে। উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে পেয়ারা বেশ কার্যকরী। দাঁত ও মাড়ি মজবুত রাখার পাশাপাশি দৃষ্টি শক্তি উন্নত করতে কাজ করে পেয়ারা।

ছবি: আমড়া

আমড়া
বর্ষার আরেকটি সুস্বাদু এবং সহজলভ্য ফল হল আমড়া। রাজধানীতে খুব সহজেই ৫ থেকে ১০ টাকায় একটি আমড়া পাওয়া যায়। টক-মিষ্টি স্বাদের আমড়ায় রয়েছে ভিটামিন সি, আয়রন ও ক্যালসিয়াম। এছাড়াও আমড়ার রয়েছে নানা পুষ্টিগুণ। মুখে রুচি বৃদ্ধিতে সহযোগিতা করে আমড়া। তেল ও চর্বিযুক্ত খাদ্য খাওয়ার পর আমড়া খেলে দ্রুত খাদ্য হজম হয়। আমড়া স্কার্ভি প্রতিরোধ করে এবং ভাইরাল ইনফেকশনের বিরুদ্ধে কাজ করে। অসুস্থ ব্যক্তিদের মুখের স্বাদ ফিরিয়ে দেয়। সর্দি-কাশি-জ্বরের উপশমেও আমড়া অত্যন্ত উপকারী। এতে ক্যালসিয়াম থাকে বলে এটি শিশুর দৈহিক গঠনে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

ছবি: জাম্বুরা

জাম্বুরা
জাম্বুরা বর্ষার আরেকটি বহুল পরিচিত ফল। অঞ্চলভেদে এক ‘বাতাবিলেবু’ বা ‘ছলম’ও বলা হয়। পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ জাম্বুরা নানান রোগের প্রতিকারক ও প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করে। এই ফলের উপাদান রক্ত পরিষ্কার করতে সাহায্য করে। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম। যা হৃদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। ভিটামিন সি ও বি হাড়, দাঁত, ত্বক ও চুলে পুষ্টি যোগায় এবং সুন্দর রাখতে সাহায্য করে। জ্বর, মুখের ঘা ইত্যাদি রোগে জাম্বুরা বেশ উপকারি। নিয়মিত জাম্বুরা খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয় ও পেটের নানা রকম হজমজনিত সমস্যার প্রতিকার হয়।

ছবি: কামরাঙা

কামরাঙা
টক-মিষ্টি স্বাদের কামরাঙার উৎপত্তি শ্রীলঙ্কায়। সেখান থেকে ভারত, বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, ফিলিপাইন, চীনসহ ইউরোপ-আমেরিকা মহাদেশে চাষ হয় এবং বেশ পরিচিতি পায়। কোথাও কোথাও এটি স্টার ফ্রুট বা তারাফল নামে পরিচিত। কামরাঙায় রয়েছে উচ্চ মাত্রার ভিটামিন সি। সবুজ রঙের ফলটিতে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, পটাশিয়াম আর ভিটামিন সি রয়েছে প্রচুর পরিমাণে। নিয়মিত কামরাঙা খেলে শরীরে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। আর ত্বকও ভাল থাকে। শিশুর জন্য পর্যাপ্ত বুকের দুধ পেতে, মায়েরা খেতে পারেন কামরাঙা। বমিতেও কামরাঙা সাথে সাথে ফল দেয়। তবে কিডনি রোগীদের কামরাঙা খাওয়া প্রায় নিষেধ বললেই চলে।

LEAVE A REPLY