প্রাকৃতিক চিকিৎসায় ঔষধমুক্ত থাকার প্রেরণা

0
70

ঠাকুরগাঁয়ের থাকেন গৃহিনী আনোয়ারা বেগম। দশ বছর যাবৎ ডায়েবেটিসে আক্রান্ত হন, সেই থেকে আস্তে আস্তে আক্রান্ত হতে থাকেন আর্থারাইটিস, উচ্চরক্ত চাপ, উচ্চ ক্লোলেষ্ট্ররল, ফোবিয়া, কোমড়ের ব্যথা, হাঁটু ব্যথা সহ হৃদরোগে। এমন অবস্থায় শারিরীক স্বক্ষমতা হারিয়ে চলাচলে মত শক্তি হারিয়ে ফেলেন। সেই সাথে তিনি সারা দিন মোট 13 টি ঔষধ খেয়ে থাকেন।
দীর্ঘদিন ঔষধ সেবন করেও কোন ধরণের শারিরীক উন্নতি হয়নি। বরঞ্চ দিনে দিনে অস্বস্তিতে দিন যাপন করতে থাকেন। গত দুমাসে তিনি বারডেম, ইব্রাহিম কাড্রিয়াক হাসপাতালে চিকিৎসা নেন কিন্তু চিকিৎসায় কোন উন্নতি না হয়ে আরো সমস্যাগুলো বাড়তে থাকে।
উপায়ন্ত না পেয়ে ন্যাচারোপ্যাথি সেন্টারে চিকিৎসার জন্য আসেন। ন্যাচারোপ্যাথি সেন্টারের 6 দিনে প্যাকেজে তিনি প্রাকৃতিক নিয়ম কানুন সুস্থ থাকার উপায়গুলো মেনে চলতে থাকেন।
খুব আশাব্যঞ্জক যে, আনোয়ারা বেগম 6 দিনে কোন ঔষধ খাননি, কোন ইনসুলিন নেননি এবং কোন ধরণের শারীরিক প্বার্শপতিক্রিয়া বিহীন অবস্থায় চলে আসেন। খাদ্য ব্যবস্থাপনা ও আকুপ্রেসারের মাধ্যমে  তার শারীরিক উপসর্গগেুলো চলে যায় এবং ডায়েবেটিস নিয়ন্ত্রণে চলে আসে এবং শরীরের ব্যথা গুলো চলে যায়।
আনোয়ারা বেগম দীর্ঘ 10 বছর পর কোন ধরণের ঔষধবিহীন জীবন যাপন করেছেন, ন্যাচারোপ্যাথি সেন্টারের দেয়া পথ্য ও খাদ্য সহ জীবন ধারা মেনে চললে আগামীতে তার কোন ঔষধের প্রয়োজন হবে না এমন আশ্বাস নিয়েই তিনি আজ সেন্টার থেকে চলে গেছেন এবং তিনি স্বীকার করেছেন যে, প্রাকৃতিক নিয়মে সুস্থতাই মুল সুস্থ্যতা।

SHARE

LEAVE A REPLY